বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪
 

অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশ: ১০ জুন ২০২৪

---
পাথরঘাটায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নতুন তিন মুখ নির্বাচিত

মোঃ জিয়াউল ইসলাম
ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদের তৃতীয় ধাপের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এতে পাথরঘাটা উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে উপজেলায় নেতৃত্বে নতুন তিন প্রতিনিধি পেয়েছে উপজেলা বাসী।
বতর্মান উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা কবিরকে হারিয়ে নির্বাচিত হয়েছেন এনামুল হোসাইন, এবারই প্রথম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে তিনি।
রবিবার ৯ জুন রাত ১০টার দিকে ফলাফল ঘোষণা করেন অতিরিক্ত নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা দিলিপ কুমার হাওলাদার। এর আগে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত উপজেলার ৫৯টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।
ঘোষিত ফলাফল অনুযায়ী, পাথরঘাটা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলাপরিষদের সাবেক সদস্য এনামুল হোসাইন দোয়াত কলম প্রতীক নিয়ে ২৪ হাজার ২১০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নুর আফরোজা হেপী মোটরসাইকেল প্রতীকে পেয়েছেন ২২ হাজার ২২৯ ভোট। এছাড়া বর্তমান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তফা গোলাম কবির কাপ পিরিচ প্রতীকে পেয়েছেন ১৫ হাজার ৩২৪ ভোট, রফিকুল ইসলাম রিপন মোল্লা আনারস প্রতীকে পেয়েছেন দুই হাজার ৬০০ ভোট, হাফিজুর রহমান সোহাগ ঘোড়া প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন তিন হাজার ৭৭৪ ভোট, আকন মোঃ সহিদ চিংড়ী প্রতীক নিয়ে ৭২৩ ভোট এবং হেমায়েত হোসেন ভুট্টো হেলিকপ্টার প্রতীকে পেয়েছেন ৩১৭ ভোট।

এদিকে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফাতিমা পারভীন কে হারিয়ে নির্বাচিত হয়েছেন নাজমুন্নাহার পাপড়ি মল্লিক, পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন সৈয়দ মো: নাজেস আফরোজ নবনির্বাচিত হয়
ভাইস চেয়ারম্যান পদে সৈয়দ মো: নাজেস আফরোজ টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে ২৯ হাজার ৭২১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মো: শওকত হাচান রমিম মাইক প্রতীক নিয়ে ভোট পেয়েছেন ২৫ হাজার ১৫৪। এছাড়া জামাল আহমেদ পঞ্চায়েত, উড়ো জাহাজ প্রতীক নিয়ে ৫ হাজার ৯৫১ ভোট, রেজাউল করিম রাজা তালা প্রতীকে ৬ হাজার ৮১৫ ভোট, জাহিদ হাসান বই প্রতীকে ১ হাজার ছয় ভোট পেয়েছেন।
মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ফুটবল প্রতীক নিয়ে নাজমুন্নাহার পাপড়ি মল্লীক ২৯ হাজার ৬৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নীলু রানী প্রজাপতি প্রতীকে পেয়েছেন ১৪ হাজার ৩৭৫ ভোট এবং বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান ফাতিমা পারভীন কলস প্রতীকের পেয়েছেন ১৪ হাজার ২৫২ ভোট। এছাড়া ফারজানা হাস প্রতীকে পেয়েছেন ১০ হাজার ৪৩৩ ভোট।
সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো স্থানীয় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ব্যাপক প্রচারের মধ্য দিয়ে মাত্র ষাট দিনের প্রচারনায় তাক লাগিয়ে দিয়েছেন। সৈয়দ মো: নাজেস আফরোজ ইঞ্জিনিয়ার নয়ন টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হন। এবং হারিয়ে দেন হেভিওয়েট প্রার্থী শওকত হাসান রমিমকে।

মন্তব্য

পঠিতসর্বশেষ

এলাকার খবর

Developed By: Dotsilicon